1. najmush71@gmail.com : admin : Najmush Shakeer
  2. munir2002lubnan@gmail.com : Munirul Huq Khan : Munirul Huq Khan
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ১১:০৩ পূর্বাহ্ন

বুধ গ্রহের একটি জ্বালামুখের নামকরণ করা হয়েছে শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের নামে

রিপোর্টার
  • আপডেট : বৃহস্পতিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

বাংলাদেশের বিশ্বখ্যাত চিত্রশিল্পী শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনকে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা প্রতিষ্ঠান NASA -এর সুপারিশক্রমে ২০০৯ সালের ৯ জুলাই এমন সম্মাননা দেয় ইন্টারন্যাশনাল অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল ইউনিয়ন (আইএইউ)। বুধ গ্রহের একটি জ্বালামুখের নামকরণ করা হয় ‘Abedin Crater’ বা ‘আবেদিন জ্বালামুখ’ হিসেবে। এই জ্বালামুখের ব্যস ১১৬ কিলোমিটার এবং ভিত্তি বেশ মসৃণ।

পৃথিবীর বিখ্যাত ব্যক্তিদের নামে বিভিন্ন গ্রহের গর্ত ও জ্বালামুখের নামকরণের রীতি ১৯১৯ সালে প্রচলন করে ইন্টারন্যাশনাল অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল ইউনিয়ন (আইএইউ)। প্রথম দিকে কেবল সায়েন্স ফিকশন লেখক আর বিজ্ঞানীদের নামের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল এই রীতি। যেমন চাঁদ ও মঙ্গল গ্রহের গর্ত ও জ্বালামুখগুলো সায়েন্স ফিকশন লেখক এবং বিজ্ঞানীদের নামেই রাখা হয়।

পরবর্তীতে নীতিমালা আরো বর্ধিত করে আইএইউ। আন্তর্জাতিক জ্যোতির্বিজ্ঞান সংস্থাটি সিদ্ধান্ত নেয়, যারা মানবসভ্যতার মানবিক বোধ ও উপলব্ধিকে গভীরতর করেছেন, সেসব শিল্পী-সাহিত্যিকের নামেও গ্রহের গর্ত বা জ্বালামুখের নামকরণ করা হবে। বিশেষ করে বুধ গ্রহের জ্বালামুখগুলোর নাম রাখা হবে বিখ্যাত শিল্পী ও সাহিত্যিকদের নামানুসারে।

আইএইউর নিয়ম অনুসারে, বুধ গ্রহের নতুন আবিষ্কৃত প্রতিটি খাদ ও জ্বালামুখের নাম এমন কোনো শিল্পী ও সাহিত্যিকের নামে হতে হবে, যিনি ৫০ বছরের বেশি সময় ধরে বিখ্যাত ছিলেন এবং গর্ত ও জ্বালামুখ আবিষ্কারের অন্তত ৩ বছর আগে মৃত্যুবরণ করেছেন।

বুধ গ্রহ সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহের জন্য ১৯৭৩ সালে ‘ম্যারিনার ১০’ নামে প্রথম মহাকাশযান পাঠায় মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। এরপর ২০০৪ সালে দ্বিতীয় অভিযান হিসেবে পাঠায় ‘মেসেঞ্জার’ মহাকাশযান। ২০০৮ সালে মহাকাশযানটি বুধ গ্রহের পাশ দিয়ে উড়ে যায়। একে ফ্লাইবাই বলা হয়। বুধকে ঘিরে প্রথম দুটি ফ্লাইবাইয়ের সময় যানটি গ্রহের উত্তরাঞ্চলের পৃষ্ঠে অনেক গর্ত ও আগ্নেয়গিরির জ্বালামুখ আবিষ্কার করে।

বিশ্বের নানা প্রান্তের কীর্তিমান শিল্পী-সাহিত্যিকের নামে ২০০৯ সালের ৯ জুলাই তারিখে যে ১৬টি জ্বালামুখের নামকরণের তালিকা প্রকাশ করে আইএইউ, সেই তালিকায় উঠে আসে ফ্রান্সের চিত্রশিল্পী আন্দ্রে ডেরেন, ঘানার সাহিত্যিক জো কলম্যান ডি গ্রাফট, মেক্সিকোর চিত্রশিল্পী মারিয়া ইজকিয়ারদো, আমেরিকার সাহিত্যিক আর্নেস্ট হেমিংওয়ের পাশাপাশি বাংলাদেশের চিত্রশিল্পী জয়নুল আবেদিনের নামও।

শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন ১৯১৪ খ্রিস্টাব্দের ২৯ ডিসেম্বর তৎকালীন ময়মনসিংহ জেলার কিশোরগঞ্জ মহুকুমার (বর্তমানে কিশোরগঞ্জ জেলা) কেন্দুয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭৬ সালের ২৮ মে ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২৩ আঙ্গর টিভি